আমাদের মাদ্রাসার ইতিহাস

কুওয়াতুল ইসলাম কামিল (এম.এ) মাদ্রাসাটি খুলনা বিভাগের কুষ্টিয়া সদর উপজেলার মধ্যে একটি অন্যতম এমপিওভূক্ত আলিয়া মাদরাসা। এটি কুষ্টিয়া জেলার প্রধান হিসাবে কুওয়াতুল ইসলাম কামিল মাদরাসা হিসেবে পরিচিত। এটি কুষ্টিয়া শহরের বড়বাজারে নিকটবর্তী অবস্থিত একমাত্র কামিল আলিয়া মাদরাসা। ১৯৫৫ খ্রিস্টাব্দে প্রতিষ্ঠিত এই মাদরাসাটি উত্তরবঙ্গের মধ্যে প্রধান ও অন্যতম এমপিওভূক্ত আলিয়া মাদরাসা। এই মাদরাসাটি বাংলাদেশ মাদরাসা শিক্ষাবোর্ড ও ইসলামী আরবি বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃক পরিচালিত হয়। বর্তমানে এই মাদরাসাটি ইবতেদায়ী থেকে কামিল পর্যন্ত অধ্যয়ন করার সুযোগ রয়েছে এবং পরিচিতি ও ফলাফলের দিক থেকে ব্যাপক সুনাম রয়েছে। ১৯৫৫ খ্রিস্টাব্দে কুষ্টিয়া জেলার শহরতলীতে প্রতিষ্ঠিত এই কুওয়াতুল ইসলাম কামিল মাদরাসাটি মানুষের ইসলামি শিক্ষা ও আধুনিক উচ্চ শিক্ষার পাশাপাশি নৈতিকতার জ্ঞান প্রদান করে।

 

 

ইতিহাস

১৯৫৫ সালে কুষ্টিয়া মানুষের ইসলামি ও আধুনিক উচ্চ শিক্ষার সুবিধার জন্য কুষ্টিয়াতে কুওয়াতুল ইসলাম কামিল মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। এই মাদ্রাসা কুষ্টিয়া জেলায় অবস্থিত হওয়ার কারনে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়, বাংলাদেশের সাথে একটি যোগাযোগ রয়েছে।

শিক্ষা কার্যক্রম

কুওয়াতুল ইসলাম কামিল মাদ্রাসায় ইবতেদায়ী থেকে শুরু করে আলিয়া মাদ্রাসার সর্বোচ্চ পর্যায় কামিল শ্রেণী পর্যন্ত রয়েছে। এই মাদ্রাসার দাখিল ও আলিম পর্যায়ে বিজ্ঞান ও মানবিক উভয় শাখা রয়েছে। এবং ফাজিল ও পর্যায়ে আল কুরআন ও ইসলামি অধ্যয়ন, আল হাদিস ও ইসলামি অধ্যয়ন, দাওয়াহ প্রভৃতি বিভাগ চালু আছে। এছাড়াও কামিল পর্যায়ে আল কুরআন ও আল হাদিস নিয়ে উচ্চ পড়াশোনা ও গবেষণার সুযোগ রয়েছে।

সুযোগ-সুবিধা

এই মাদ্রাসা আধুনিক সকল সুযোগ সুবিধা সম্পন্ন একটি মাদ্রাসা। ছাত্রদের খেলার মাঠ, পড়াশোনার জন্য লাইব্রেরী, মেয়েদের অবসর কাটানোর জন্য কমন রুম সহ বিভিন্ন সুবিধা রয়েছে।

খেলার মাঠ

কুওয়াতুল ইসলাম কামিল মাদ্রাসার চারিদিকে দেয়ালের মাঝখানে শিক্ষার্থীদের খেলার জন্য সুবিশাল মাঠ রয়েছে। এখানে অবসর সময়ে ও পাঠদান শেষে মাদ্রাসার ছাত্ররা ও সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা এখানে খেলা-ধুলা করে থাকে। এই মাদ্রাসার ছাত্ররা খেলা-ধুলায় অগ্রগণ্য। বেশিরভাগ সময় ছাত্ররা ক্রিকেট, ফুটবল ও ভলিবল খেলে থাকে।

গ্রন্থাগার

মাদ্রাসার সকল শিক্ষার্থীদের জন্য উন্মুক্ত লাইব্রেরী রয়েছে। দাখিল থেকে শুরু করে কামিল পর্যায়ের সকল শিক্ষার্থীরা এখান থেকে বই ধার নিয়ে পড়াশোনা করতে পারে। ফাজিল ও কামিল শ্রেণীর শিক্ষার্থীদের জন্য বিশেষ উচ্চতর গবেষণাধর্মী বই রয়েছে।

বিজ্ঞানাগার

মাদ্রাসার বিজ্ঞান বিভাগের ছাত্রদের গবেষণা ও ল্যাব ক্লাস করার জন্য মাদ্রাসায় বিজ্ঞানানার প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। এখানে ছাত্ররা পাঠদান সময়ে ও অবসর সময়ে গবেষণা ও পরীক্ষা-নিরীক্ষা করতে পারে। ২০২০ সালে এই মাদ্রাসা বিজ্ঞানাগার উন্নয়নের জন্য ৬৫০০০ টাকা বাজেট পায়।